26 June, 2019

ঢাকাইয়া 'গাল্লি বয়' র‍্যপ গানের লিরিক্স। কে এই 'Dhakaiya Gully Boy Rana' জেনে নিন।

মাত্র ১০ বছরের একটা বস্তির ছেলে। এইতো গত সপ্তাহখানেক আগেও যাকে চিনতো না কেউ। কিন্তু মাত্র একটি গানের মাধ্যেমেই সে আজকের বাংলাদেশের সবচাইতে আলোচিত এক নাম।

দুইদিনের ব্যনধানে বস্তির রানা থেকে সে এখন দেশের সবচাইতে আলোচিত গলি বয় রানা।

কি তার পরিচয়? কিভাবে তার উঠে আশা এবং কিভাবেই বা হুট করে বনে গেলেন দেশের জনপ্রিয় একজন শিশুশিল্পী?



রানা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ঘুরে বেড়ানো আর দশটা পথশিশুর মতোই একজন। ঢাবির ক্যাম্পাস এলাকাতেই সারাদিন ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় তাকে।

ছোট্ট এই শিশুটি দারুন র‍্যপ গান গায়। ক্যাম্পাসে ঘুরে ঘুরে র‍্যপ গান শুনিয়ে শুনিয়ে দু-পাচ টাকা করে চেয়ে নেয় মানুষের কাছ থেকে। সেই পথশিশু রানা হঠাত ই ফেসবুকে গলি বয় হিসেবে ভাইরাল হয়েছে। গত ৩১মে বৃহঃপতি বার রাতে রানার গাওয়া র‍্যপ গান ঢাকাইয়া গলি বয় শিরোনামে ছড়িয়ে পড়ে ফেসবুকে।  এখান থেকে এখন ইউটিউবেও ভাইরাল এই গলি বয় রানা।


'ঢাকাইয়া গলিবয়' গানের কথা গুলোও এই রানার জীবন থেকে নেওয়া। একটা বস্তির ছেলের কস্টাকর জীবনের কথাগুলোই দারুন ভাবে গানটিতে ফুটিয়ে তুলে ধরা হয়েছে।

তার জীবনের কষ্টকর কথাগুলো তুলে আনার পিছনের কারীগর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মাহমুদ হাসান তবির।

রানার সাথে তার পরিচয়  সেই ঢাবির  ক্যাম্পাসেই। একদিন তবির বাইক নিয়ে কোথাও যাবার জন্য বের হচ্ছিলেন।  তখনই রানার আবদার বাইকে চড়বে। তবিরও মানা করে নি। রানাকে পিছনে নিয়ে ঘুরে বেড়ালেন।  এরই মাঝে তবির রানার কাছে জানতে চেয়েছিল গান অয়ারে কিনা? তারপরের গল্প ইতিহাস। রানা তবিরকে শুধুমাত্র গানই শোনান নি, রিতিমতো অবাক করে দিয়েছেন নিজের র‍্যপ গানের এনার্জি দেখিয়ে।

তারপর আর দেরি করেনি গান পাগল তবির। রানাকে দিয়ে গানটি অনুশীলন করিয়ে এর ভিডিও চিত্র ধারন করেন। তৈরি করে ফেলেন একটি মিউজিক ভিডিও।

সেখানে রানার সাথে মাহমুদ হাসান তবির নিজেও অংশ নেন। গানের পাশাপাশি এর মিউজিক ভিডিও টি পরিচালন করেন তবির।

মাহমুদ হাসান তবির ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্র। ভালোলাগা ও ভালোবাসা থেকে তিনি নিজেও গান করেন।

তবির বলেন গত সাত সপ্তাহখানেক আগে রানার সাথে তার প্রথম পরিচয় হয়। ওর গান শুনে আমি মুগ্ধ। ছেলেটির মধ্য টেলেন্ট আছে, আমি ওর গান শুনে ওর জীবন সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হয়ে উঠি। দরিদ্র রানার জীবনের সংগ্রামী গল্প শুনে সেই রাতেই ওকে নিয়ে গানটি লিখে ফেলি।

এরপর রানাকে অল্পসময়ে যতটুকু সম্ভব অনুশীলন  করিয়ে আমার এক বন্ধুর হোম স্টুডিওতে রেকর্ড  করি।

ও খুব অল্প সময়ের সবকিছু নিজের আয়ত্বে নিয়ে নিতে পারে। রেকর্ডিং ও ভিডিও গ্রহন শেষে গত ৩১ মে বৃহঃপতি বার গানের কাজ শেষ হয়। তার পর আমি গানটি ফেসবুকে ছেড়ে দেয়। এরপর গানটি মুহুর্তের মধ্যে রানার প্রতিভার প্রশংসা ছডিয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

অনেকেই রানার প্রতিভায় মুগ্ধ হয়ে তার সন্ধান করতে শুরু করেছেন। অনেকেই জানতে চেয়েছেন কোথায় পাওয়া যাবে গলি বয় রানাকে? ভাইরাল হওয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই বেরিয়ে আশে এই ঢাকাইয়া গলি বয়ের পরিচয়।

তার নাম রানা।  থাকে কামরাঙ্গির চরের একটি বস্তিতে। মুলত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকাতেই ঘুরে বেড়ায় রানা। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত অকে এখানেই পাওয়া যায়। রানা এর আগে স্কুলে প্রথম শ্রেনীতে ভর্তি হলেও পরবর্তীতে টাকার অভাবে আর স্কুলে যাওয়া হয়নি। রানার পরিবারে রয়েছে তার আরো এক ভাই এবং তার মা সিতারা বেগম।

বাসায় বাসায় কাজ করে তার মা দুই ছেলের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করেন। কোনো রকমের খেয়ে পরে দিন কাটায় তারা। মাত্র এক সপ্তাহের ব্যনধানে ছেলের এমন কৃর্তি যার কারনে সেই কামরাঙ্গির চরে সাংবাদিকদের ভীড়।

বড্ড অবাক তিনি। ছেলের সম্ভাবনা মিয়ে তিনি বলেন 'আমি রানাকে জিগায়, তুমি যে এমন করো তুমি কি শ্বিল্পী হতে পারবে? ছেলে বলে সবাই একটু একটু করে হয়ে যায়, আমিও পারমু।

মায়ের চোখে মুখে ছেলের সফলতার হাতছানী। অন্যদিকে রানা তার চোখেও স্বপ্নের ছোয়া। তবে সেটা শুধু মাত্র গানকে নিয়ে নয়। পড়াশোনা করার। ভালোভাবে পড়াশোনা করে হতে চায় ডাক্তার, করতে চায় মানুষের সেবা। যদি সেটা না পারে র‍্যপার হতেও তার আপত্তি নেই।

অন্যদিকে হুট করে উঠে আশা রানার এই প্রতিভাকে কোনো ভাবেই হারিয়ে যেতে দিতে চান না 'ঢাকাইয়া গলিবয়' গানের পরিচালক ও সহশিল্পি মাহমুদ হাসান তবির।

তিনি কথা দিয়েছেন রানার এই প্রতিভাকে সঠিকভাবে ব্যবহারের, যতটা সম্ভব তাকে আরো পরিনত এবং পরিপক্ব হিসেবে গড়ে তুলবেন। আর রানাও আধুনিকা এবং যে কোনো গানের মধ্যে নিজেকে নিয়ে যাবে অনন্য উচ্চতায়।

দেখে আসি গানটিঃ

Song Name: Dhakaiya Gully Boy.
Artist: Rana the Gullyboy & Mahmud Hasan Tabib.
Lyrica: Mahmud hasan Tabib

হ্যায়....... আমি রানা।
কামরাঙ্গির চোর উরুবুয়ের চুলবুল,
৮নং গলি, মনের কথা বলি।

ঢাকাইয়া গাল্লিবয়.... ১....২.....৩....Ready.

আমি গলির পোলা, নাম হইলো রানা।
শহরের অলিগলির গল্প আমার জানা।
জীবনের কঙ্কাল কে কাছ থেকে দেখি।
কিছু কিছু প্রশ্ন আছে মনের ভিতর রাখি।

আমার অনেক ইচ্ছে ছিল ইস্কুলে যামু।
তিন ব্যলা পেট ভরে ভাত মাছ খামু।
আমার লাইগা নতুন একটা কালা প্যান্ট কিনা,
নতুন একটা শাড়ি কিইনা মার হাতে দিমু।

এখন এসব ইচ্ছে দিছি মনের ভিতর কবর,
পেটে আমার ক্ষিদে দেয় তিন বেলা কামড়।
একমাস শ্রেহরী খাইয়া রোজা রাখা সোজা,
আমি রানা সারা বছর শ্রেহরী ছাড়ায় রোজা।

দেশবাসি শুইনা রাখেন আমার দিনও আইবো,
গলির পোলার কন্ঠে একদিন সারা দেশ কাপবো।
রোজার মাসে পরকালের জন্য কিছু নবাব,
ইফতারী না পাইলে আমার ঘরে দাওয়াত।

আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।
আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।
আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।
আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।
আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।

বড়লোকের বাচ্চা খেলে দিয়া টয়,
'Chera Pant' পইড়া ঘুরি আমি গাল্লি বয়।
আস্তে আস্তে বল করুম, পারলে মারো ছয়,
আমি কামলা খাইট্টা যামু, তোমরা কইরো জয়।

লক্ষ কইরা শোনেন একটা ছোট্টগল্প বলি,
কামরাঙ্গির চরের এইটা আট নং গলি।
জীবনটা মিশে গেছে অভাবের সাথে যেন
মানুষের পায়ের নিচে কাদে চোরা বালি।

বড় লোকের বাড়িতে মা কাজ কইরা যা পাই
স্ত্রীর নাম কইরা মানুষে তা চাপায়।
পাটে পড়লে আপনিও পড়ে যাবেন কব্জায়,
কত টাকা ঋন কি? ঋন তারা সব চায়।

এমন একটা পরিবেশে থাকে আমাগো রানা,
স্কুলের ফিস নাই তো ক্লাসে যাওয়া মানা।
রানা পথে পথে ঘোরে দেখবেন TSC র মোড়ে,
হঠাত আসে কইবো কইডা টাকা দেন আমারে

আপনি মারবেন একটা ঝাড়ি কারন আপনি সুশীল সমাজ,
মসজিদের পড়তে যাইবেন শুক্রবারের নামাজ।
তারপর মাইকের সামনে আপনি সমাজের ডাক্তার,
দেশ নিয়ে দিবেন কতো বড় বড় লেকচার,

আমি রানা গাল্লিবয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।
আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।
আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।
আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।

বড়লোকের বাচ্চা খেলে দিয়া টয়,
'Chera Pant' পইড়া ঘুরি আমি গাল্লি বয়।
আস্তে আস্তে বল করুম, পারলে মারো ছয়,
আমি কামলা খাইট্টা যামু, তোমরা কইরো জয়।

আমি রানা গাল্লিবয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।
আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।
আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।
আমি রানা গাল্লি বয়, ঢাকাইয়া গাল্লি বয়।

গাল্লিবয়.....।

Tags: Dhakaiya Gully Boy Rana, ঢাকাইয়া গাল্লি বয় রানা, কে এই গাল্লি বয় রানা।

0 comments: